খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সুযোগ না পেলে টাকা ফেরত

আপডেট: অক্টোবর ১৯,২০১৬ | 

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে যে সব আবেদনকারী নির্ধারিত সংখ্যার উর্ধ্বে থাকার কারণে ভর্তি পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পাবেন না তাদের নিকট থেকে ফরমের জন্য নেয়া টাকা ফেরত দেয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সভাপতি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ সংক্রান্ত আবেদন ফরম বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েব সাইট (www.ku.ac.bd) তে পাওয়া যাবে। তা পূরণ করে অনলাইনে জমা দিলে স্ব স্ব ঠিকানায় মানি অর্ডার যোগে খরচ বাদ দিয়ে বাকী অর্থ ফেরত দেয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে উপাচার্য বলেন, এবার আগেই ভর্তি কমিটির সিদ্ধান্ত ছিলো প্রত্যেক স্কুলে সর্বোচ্চ সাত হাজার পর্যন্ত আবেদনকারীকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হবে। তবে সাত হাজারতম আবেদনকারী যদি একাধিক হয় তবে তারাও ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে।

এবার আবেদন জমা পড়ার পর দেখা যায় বিজ্ঞান প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের এবং জীব বিজ্ঞান স্কুলের প্রত্যেকটিতে সাত হাজারের চেয়ে অনেক বেশি আবেদন জমা পড়ছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলে ১৩ হাজার ৩৬৫টি এবং জীব বিজ্ঞান স্কুলে ১২ হাজার ৬৪০টি।

`ফলে এই দু’স্কুলের আবেদনকারীদের মধ্য থেকে মেধা তালিকার ভিত্তিতে প্রণীত যোগ্যতমদের তালিকার বাইরে কয়েক হাজার আবেদনকারী রয়ে যাচ্ছে যারা ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সুযোগ পাচ্ছে না। এ ধরণের আবেদনকারী যারা ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে না তাদের নিকট থেকে গৃহীত অর্থ ফেরত দেয়া হবে বলে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, যাদের ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ দেয়া গেলো না তাদের টাকা নৈতিকভাবে ফেরত দেয়াই উচিত। শিক্ষার্থীদের অনেকেই আছে যাদের কষ্টে অভিভাবকদের যোগাড় করা টাকা এভাবে আমরা নিতে পারি না। এ টাকা দিয়ে প্রয়োজনে তারা অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে পারবে বা শিক্ষার অন্য কোনো কাজে লাগাতে পারবে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ধরণের সিদ্ধান্ত এই প্রথম নেয়া হলো। দেশে এ ধরণের দৃষ্টান্ত অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে নেই। দেশে বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের জন্য এটা অনুস্মরণীয় হবে বলে মনে করেন অভিজ্ঞ মহল।

সুত্রঃ দৈনিক শিক্ষা

সাম্প্রতিক তথ্যসমূহ