অন্যান্য শ্রেণি ও বিষয়

নবম - দশম শ্রেণি : রসায়ন

রসায়ন পরিচিতি

রসায়ন পরিচিতি

More Details...

রসায়ন পরিচিতি

রসায়নের পরিধি

রসায়নের পরিধি

More Details...

রসায়নের পরিধি

রসায়নের সাথে বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার সম্পর্ক

রসায়নের সাথে বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার সম্পর্ক

More Details...

রসায়নের সাথে বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার সম্পর্ক

রসায়ন পাঠের গুরুত্ব

রসায়ন পাঠের গুরুত্ব

More Details...

রসায়ন পাঠের গুরুত্ব

রসায়নে অনুসন্ধান ও গবেষণা প্রক্রিয়া

রসায়নে অনুসন্ধান ও গবেষণা প্রক্রিয়া

More Details...

রসায়নে অনুসন্ধান ও গবেষণা প্রক্রিয়া

রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণ ও ব্যবহারে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা

রসায়নে অনুসন্ধানের সময়ে রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণ ও ব্যবহারে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা

More Details...

রসায়নে অনুসন্ধানের সময়ে রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণ ও ব্যবহারে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা

রসায়নের বিস্তার

বর্তমান যুগে রসায়নের পরিচিতি  শুধুমাত্র শিল্প-কারখানা,পরীক্ষাগার বা গবেষণাগারের কাজে সীমাবদ্ধ নয়।যদি আমরা চারপাশের ঘটনা লক্ষ্য করি,তাহলে দেখতে পাব যে,সবক্ষেত্রেই রসায়নের উপস্থিতি রয়েছে।আমাদের পরিবেশে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন পরিবর্তনের সাথে রসায়ন নানাভাবে সম্পৃক্ত।

রসায়নের পরিচিত

রসায়ন প্রাচীন ও প্রধান বিজ্ঞানগুলোর মাঝে অন্যতম। রসায়নে নানা ধরনের পরিবর্তন নিয়ে আলোচনা করা হয়।রসায়নের চর্চা কয়েক সহস্রাব্দী থেকে হয়ে আসছে। সময়ের সাথে সাথে রসায়নের ব্যবহার বেড়ে চলেছে।বর্তমান যুগে রসায়ন শুধু গবেষণাগারের কাজেই সীমাবদ্ধ নয়। প্রায় 5000 বছর পূর্বে ভারতে প্রথম কাপড়কে আকর্ষণীয় করে তুলতে রঙের ব্যবহার শুরু হয়। খ্রি. পূর্ব 2600 অব্দে মিশরীয়রা স্বর্ণ আহরণ করে যা অভিজাত ও মূল্যবান ধাতু হিসেবে পরিচিত। প্রাচীন ও মধ্যযুগীয় রসায়ন আল–কেমি নামে পরিচিত। এটি আরবি শব্দ। 

রসায়নের উপস্থিতি

কাঠ,কেরোসিন,প্রাকৃতিক গ্যাস,মোম প্রভৃতি মূলত কার্বনের যৌগ দিয়ে গঠিত।

দহন

দহন হল এক ধরনের রাসায়নিক বিক্রিয়া।অক্সিজেনের সাথে অন্য কোন বস্তুর বিক্রিয়াকে দহন বলে।এর ফলে CO_2,জলীয়বাষ্প ও তাপ উৎপাদিত হয়। 

মরিচা

লোহা জলীয়বাষ্পের উপস্থিতিতে বায়ুর অক্সিজেনের সাথে বিক্রিয়া করে লোহার অক্সাইড বা মরিচায় পরিণত হয়।মরিচা ভঙ্গুর হয়। 

রসায়নের পরিধি

শ্বেতসার,আমিষ,চর্বি সবই জৈব যৌগ এবং বিভিন্ন খনিজ পদার্থ।পেট্রোলিয়ামের দহনের মাধ্যমে মোটরসাইকেল চালানো হয়। 

রসায়নের সাথে বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখার সম্পর্ক

প্রাণী সকল খাদ্যের জন্য উদ্ভিদের উপর নির্ভরশীল।উদ্ভিদ সালোকসংশ্লেষণ নামক জৈব-রাসায়নিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে খাদ্য প্রস্তুত ও সঞ্চয় করে।জীবদেহ বিভিন্ন জটিল অণু দ্বারা গঠিত যেমন-প্রোটিন,চর্বি,ক্যালসিয়ামের যৌগ,ডিএনএ প্রভৃতি।কম্পিউটার ও ইলেক্ট্রনিক্স নানা যন্ত্রপাতি তৈরিতে তামা ব্যবহার করা হয়।কোয়ান্টাম ম্যাকানিক্সের সাহায্যে পরমাণুর গঠন ব্যাখ্যা করা যায়। 

রাসায়নিক পরিবর্তন

পদার্থের পরিবর্তন দুই প্রকার- ভৌত ও রাসায়নিক পরিবর্তন। যে পরিবর্তনের ফলে পদার্থের শুধু ভৌত অবস্থার পরিবর্তন হয় কোন গঠনের পরিবর্তন হয় না,তাকে ভৌত পরিবর্তন বলে। যে পরিবর্তনের ফলে পদার্থের অণুর গঠনের পরিবর্তন হয় অর্থাৎ সম্পূর্ণ নতুন পদার্থে পরিণত হয় তাকে রাসায়নিক পরিবর্তন বলে। 

খনিজ পদার্থ

উদ্ভিদ ও প্রাণীর মৃতদেহ নানা অণুজীবের উপস্থিতিতে মাটির সাথে মিশে যায়।ভূগর্ভস্থ তাপ ও চাপের প্রভাবে এদের আরও রাসায়নিক পরিবর্তন হয় এবং খনিজ পদার্থে যেমন-পেট্রোলিয়াম,কয়লায় পরিণত হয়।

মিথেনের দহন

স্বল্প পরিমাণ বায়ুর উপস্থিতিতে কাঠ বা প্রাকৃতিক গ্যাস পোড়ালে স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর কার্বন কণা ও CO(কার্বন মনো অক্সাইড) উৎপন্ন হয়।এছাড়া কল-কারখানা ও যানবাহন থেকে প্রতিনিয়ত CO_2 উৎপন্ন হচ্ছে,যা পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। 

প্রিজারভেটিভস

মানুষ অনেক সময় ক্ষতির দিক বিবেচনা না করে ফলমূল দ্রুত পাকাতে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করছে।আবার খাবার বেশি দিন সংরক্ষণের জন্য প্রিজারভেটিভস ব্যবহার করছে।এসব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। 

রসায়নে অনুসন্ধান

কোন বিষয় সম্পর্কে জিজ্ঞাসা অনুসন্ধানের রূপ নেয় এবং অনুসন্ধান থেকেই গবেষণার জন্ম।কোন বিষয়ে অনুসন্ধান বা গবেষণার জন্য কতগুলো ধাপ অনুসরণ করতে হয়। 

এসিড

এসিড সাধারণত টক স্বাদযুক্ত এবং নীল লিটমাস পেপারকে লাল করে। 

কার্বক্সিল মূলক (-COOH) বিশিষ্ট অ্যালিফেটিক বা অ্যারোমেটিক জৈব যৌগকে জৈব এসিড বলে। 

রাসায়নিক দ্রব্য সংরক্ষণ

অনেক রাসায়নিক দ্রব্য স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।অনেক দ্রব্য আছে যেগুলো সহজে বিস্ফোরিত হতে পারে,বিষাক্ত,দাহ্য,স্বাস্থ্যসংবেদনশীল।এসব পদার্থ ব্যবহার ও সংরক্ষণের সময় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।যেমন-ক্লোরিন গ্যাস জারক পদার্থ,অ্যারোসল,পেট্রোলিয়াম দাহ্য পদার্থ।

জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৯৯২ সালে অনুষ্ঠিত পরিবেশ ও উন্নয়ন সম্পর্কিত সম্মেলনে বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থের জন্য বিভিন্ন সাংকেতিক চিহ্ন ব্যবহার করা হয়।তেজস্ক্রিয় রশ্মির জন্য একটি আন্তর্জাতিক রশ্মি চিহ্ন সর্বপ্রথম ১৯৪৬ সালে আমেরিকাতে ব্যবহার করা হয়।একে ট্রিফয়েল (trefoil) বলে। 

সার

কার্বন, অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, ফসফরাস প্রভৃতি মৌলের সমন্বয়ে গঠিত রাসায়নিক পদার্থ যা মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি করে তাকে সার বলে। 

রাসায়নিক পদার্থ

রাসায়নিক মৌল দ্বারা গঠিত যৌগকে সাধারণত রাসায়নিক পদার্থ বলে।যেমন-অ্যারোসোল,প্রিজারভেটিভস,বিভিন্ন ওষুধ,সার ইত্যাদি। 

পরিশোধন

অপরিশোধিত পদার্থের বিভিন্ন অংশকে পৃথক করার প্রক্রিয়াকে পরিশোধন বলে।

সক্রিয়তা

কোন মৌলের অন্য কোন মৌল বা যৌগের সাথে কত দ্রুত বা তীব্রভাবে বিক্রিয়া করে তাকে ঐ মৌলের সক্রিয়তা বলে।

বিভিন্ন এসিড

লেবুতে থাকে - সাইট্রিক এসিড 

তেঁতুলে - টারটারিক এসিড

টক দইয়ে - ল্যাকটিক এসিড

 

জারক বিজারক

যেসব পদার্থ অন্য পদার্থকে জারিত করে কিন্তু নিজে বিজারিত হয় তাকে জারক বলে।যেসব পদার্থ অন্য পদার্থকে বিজারিত করে কিন্তু নিজে জারিত হয় তাকে বিজারক বলে।

বিস্তারিত প্র্যাকটিস করুন

সকল ডিজিটাল বই

পঞ্চম শ্রেণি
নবম-দশম শ্রেণি
একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণি
বাংলা রচনা / ভাবসম্প্রসারণ ...
Essay / Compositions / Paragraph
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রস্তুতি
বি সি এস